উপজেলা ব্যানার

বিস্তারিত: 

সান্তাহার সাইলোঃ এ উপজেলার সান্তাহার খাড়ী ব্রিজ হতে ৩.৫ কিঃমিঃ দক্ষিণে ১৫(পনের) একর জমির উপর এ জেলার সর্ববৃহৎ সরকারি খাদ্য শস্য সংরক্ষণাগার ১৯৬৯খ্রিঃ সালে স্থাপিত হয় যা সাইলো নামে পরিচিত। এ প্রতিষ্ঠানটির প্রধানের পদবি ‘অধীক্ষক, সান্তাহার সাইলো’। সাইলো ধারণ ক্ষমতা ২৫,০০০(পচিশ হাজার) মেঃটন। বর্তমানে সাইলোটিতে গম সংরক্ষণ করা হয়। এ প্রতিষ্ঠানটির জনবল ১২৩ জন। বর্তমানে এ সাইলো প্রাংগনে বহুতল খাদ্য গুদাম নির্মাণাধীন। এ নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলে এ গুদামটিতে ২৫,০০০(পচিশ হাজার) মেঃটন ধান, চাল ও গম সংরক্ষণ করা হবে।  সান্তাহার জংশনঃ   সান্তাহার জংশন এ দেশের একটি প্রাচীণতম এবং সর্ববৃহৎ ট্রানসিভমেন্ট জংশন। এ জংশনে ৪টি প্লাটফরম (২টি ব্রড গেজ ও ২টি মিটার গেজ) রয়েছে। ইতোপূর্বে এ জংশনে৩৬টি ট্রেন বিভিন্ন রুটে যাতায়াত করত এবং ১টি লোকসেড আছে। এ লোকসেডে ইঞ্জিন মেরামত হতো। প্রায় ৫ বৎসর পূর্ব হতে এ লোকসেডটি বন্ধ। ৫৭১ ও ৫৭২ আপ-ডাউন আমনুরা এক্সপ্রেস ১০/১২ বৎসর হতে বন্ধ। ৫১১ ও ৫১২ গোয়ালন্দ লোকাল ট্রেনটি ৭/৮ বৎসর পূর্ব হতে বন্ধ, ৫৪১ ও৫৪২ খুলনা লোকাল ট্রেনটি ৪/৫ বৎসর পূর্ব হতে বন্ধ রয়েছে। বর্তমান মিটার গেজ ও ব্রড গেজ ৫ + ৫ = ১০টি আন্তঃনগর এক্সপ্রেস, ১০টি মেইল ট্রেন ও ৪টি লোকাল ট্রেন যাতায়াত করছে। এ জংশন হতে প্রতি বছর আয় হয় প্রায় ৭কোটি টাকা এবং বিভিন্ন খাতে ব্যয় হয় প্রায় ৩কোটি ৫০লক্ষ টাকা।

ছবি: 

উপজেলা ব্যানার