মেনু নির্বাচন করুন
জেলা সমাজসেবা কার্যালয়, বগুড়া

অফিসের নাম

জেলা সমাজসেবা কার্যালয়

অফিসের ঠিকানা

জলেশ্বরীতলা, বগুড়া
  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

সমাজসেবা অধিদফতর, জেলা সমাজসেবা কার্যালয়, কুমিল্লা হতে প্রদেয় সেবাসমূহের বিবরণী:

ক্রঃ নং

কার্যক্রম

সেবা

সেবা গ্রহীতা

সেবা প্রাপ্তির সময়সীমা

সেবাদানকারী কর্তৃপক্ষ

ক)

আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন সেবা (সুদমুক্ত ঋণ)

১.

পল্লী সমাজসেবা কার্যক্রম

  • পল্লী অঞ্চলের দরিদ্র জনগণকে সংগঠিত করে উন্নয়নের মূল স্রো্তধারায় আনয়ন;
  • সচেতনতা বৃদ্ধি, উদ্বুদ্ধকরণ এবং দক্ষতা উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রশিক্ষণ প্রদান;
  • ৫ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ক্ষুদ্রঋণ প্রদান;
  • লক্ষ্যভুক্ত ব্যক্তিদের নিজস্ব পুঁজি গঠনের জন্য সঞ্চয় বৃদ্ধি।

 

নির্বাচিত গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা, যিনি:-

  • আর্থ সামাজিক জরিপের মাধ্যমে সমাজসেবা অধিদফতরে তালিকাভুক্ত পল্লী সমাজসেবা কার্যক্রমের কর্মদলের সদস্য/সদস্যা;
  • সুদমুক্ত ঋণ ও অন্যান্য সেবা প্রাপ্তির জন্য ‘ক’ ও ‘খ’ শ্রেণীভুক্ত দরিদ্রতম ব্যক্তি অর্থাৎ যার মাথাপিছু বার্ষিক পারিবারিক আয় সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা পর্যমত্ম;
  • সুদমুক্ত ঋণ ব্যতীত অন্যান্য সেবা প্রাপ্তির জন্য ‘গ’ শ্রেণীভুক্ত ব্যক্তি অর্থাৎ যার মাথাপিছু বার্ষিক পারিবারিক আয় ২৫ হাজার টাকার ঊর্ধে।

নির্ধারিত ফরমে যথাযথ পদ্ধতি অনুসরণ করে আবেদনের পর:-

  • ১ম বার ঋণ (বিনিয়োগ) গ্রহণের জন্য আবেদনের পর ১ মাসের মধ্যে;
  • ২য়/ ৩য় পর্যায়ের ঋণ (পুনঃবিনিয়োগ) গ্রহণ এর জন্য আবেদনের পর ২০ দিনের মধ্যে।

কুমিল্লা জেলায় ১৬টি উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়

২.

পল্লী মাতৃকেন্দ্র কার্যক্রম

  • পল্লী অঞ্চলে দরিদ্র নারীদের সংগঠিত করে উন্নয়নের মূল স্রো্তধারায় আনয়ন;
  • পরিকল্পিত পরিবার তৈরিতে সহায়তা;
  • জাতীয় জনসংখ্যা কার্যক্রম বাসত্মবায়ন;
  • সচেতনতা বৃদ্ধি, উদ্বুদ্ধকরণ এবং দক্ষতা  উন্নয়ন;
  • ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ক্ষুদ্রঋণ প্রদান;
  • লক্ষ্যভুক্ত নারীদের সংগঠিত করে সঞ্চয় বৃদ্ধির মাধ্যমে পুঁজি গঠন।

নির্বাচিত গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা, যিনি:-

  • আর্থ সামাজিক জরিপের মাধ্যমে সমাজসেবা অধিদফতরে তালিকাভুক্ত পল্লী মাতৃকেন্দ্রের সদস্য; এবং
  • সুদমুক্ত ঋণ ও অন্যান্য সেবা প্রাপ্তির জন্য ‘ক’ ও ‘খ’ শ্রেণীভুক্ত দরিদ্রতম নারী যার মাথাপিছু বার্ষিক পারিবারিক আয় সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা পর্যমত্ম;
  • সুদমুক্ত ঋণ ব্যতীত অন্যান্য সেবা প্রাপ্তির জন্য ‘গ’ শ্রেণীভুক্ত নারী যার মাথাপিছু বার্ষিক পারিবারিক আয় ২৫ হাজার টাকার ঊর্ধে।

নির্ধারিত ফরমে যথাযথ পদ্ধতি অনুসরণ করে আবেদনের পর:-

  • ১ম বার ঋণ (বিনিয়োগ) গ্রহণের জন্য আবেদনের পর ১ মাসের মধ্যে;
  • ২য়/ ৩য় পর্যায়ের ঋণ (পুনঃবিনিয়োগ) গ্রহণ এর জন্য আবেদনের পর ২০ দিনের মধ্যে।

 কুমিল্লা জেলার উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় নাঙলকোট, লাকসাম, মনোহরগঞ্জ, দেবিদ্বার, দাউদকান্দি, হোমনা, মেঘনা, তিতাস, কুমিল্লা সদর দক্ষিণ ১০টি উপজেলাতে পল্লী এলাকায় স্থাপিত মাতৃকেন্দ্র।

 

৩.

এসিডদগ্ধ ও প্রতিবন্ধীদের পুনর্বাসন কার্যক্রম

  • ৫ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা ক্ষুদ্রঋণ
  • এসিডদগ্ধ ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তি যাদের বাৎসরিক আয় ২০,০০০  (বিশ হাজার) টাকার নিচে।

 

  • ১ম বার ঋণ (বিনিয়োগ) গ্রহণের জন্য আবেদনের পর ১ মাসের মধ্যে;
  • ২য়/ ৩য় পর্যায়ের ঋণ (পুনঃবিনিয়োগ) গ্রহণ এর জন্য আবেদনের পর ২০ দিনের মধ্যে।
  • কুমিল্লা জেলায় ১৬টি উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় ০১টি শহর সমাজসেবা কার্যালয়।

 

৪.

শহর সমাজসেবা কার্যক্রম

  • শহর এলাকায়  দরিদ্র জনগণকে সংগঠিত করে উন্নয়নের মূল স্রো্তধারায় আনয়ন;
  • সচেতনতা বৃদ্ধি, উদ্বুদ্ধকরণ এবং দক্ষতা উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রশিক্ষণ প্রদান;
  • ৫ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত ক্ষুদ্রঋণ প্রদান;
  • লক্ষ্যভুক্ত ব্যক্তিদের নিজস্ব সঞ্চয় বৃদ্ধির মাধ্যমে পুঁজি গঠন।

 

নির্বাচিত মহল্লার স্থায়ী বাসিন্দা, যিনি:-

  • আর্থ সামাজিক জরিপের মাধ্যমে সমাজসেবা অধিদফতরে তালিকাভুক্ত শহর সমাজসেবা কার্যক্রম কর্মদলের সদস্য;
  • সুদমুক্ত ঋণ ও অন্যান্য সেবা প্রাপ্তির জন্য ‘ক’ ও ‘খ’ শ্রেণীভুক্ত দরিদ্রতম ব্যক্তি যার মাথাপিছু বার্ষিক পারিবারিক আয় সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত;
  • সুদমুক্ত ঋণ ব্যতীত অন্যান্য সেবা প্রাপ্তির জন্য ‘গ’ শ্রেণীভুক্ত ব্যক্তি যার মাথাপিছু বার্ষিক পারিবারিক আয় ১০ হাজার টাকার ঊর্ধে।
  • ১ম বার ঋণ (বিনিয়োগ) গ্রহণের জন্য আবেদনের পর ১ মাসের মধ্যে;
  • ২য়/ ৩য় পর্যায়ের ঋণ (পুনঃবিনিয়োগ) গ্রহণ এর জন্য আবেদনের পর ২০ দিনের মধ্যে।

 

  • কুমিল্লা জেলা শহরে ০১টি শহর সমাজসেবা কার্যালয়

৫.

আশ্রয়ন/আবাসন কার্যক্রম

  • আশ্রয়ন প্রকল্পে বসবাসকারী দরিদ্র ব্যক্তিদের সংগঠিত করে উন্নয়নের মূল স্রো্তধারায় নিয়ে আসা;
  • পরিকল্পিত পরিবার তৈরিতে সহায়তা প্রদান;
  • সচেতনতা বৃদ্ধি, উদ্বুদ্ধকরণ এবং দক্ষতা উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রশিক্ষণ প্রদান;
  • ২ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকা পর্যন্ত ক্ষুদ্রঋণ প্রদান;
  • সদস্যদের সঞ্চয় বৃদ্ধিকরণ।
  • নির্বাচিত আশ্রয়ন কেন্দ্রের বাসিন্দা;
  • আশ্রয়ন কেন্দ্রের সমিতির সদস্য।

 

  • ১ম বার ঋণ (বিনিয়োগ) গ্রহণের জন্য আবেদনের পর ১ মাসের মধ্যে;
  • ২য়/ ৩য় পর্যায়ের ঋণ (পুনঃবিনিয়োগ) গ্রহণ এর জন্য আবেদনের পর ২০ দিনের মধ্যে।

 

কুমিল্লা জেলায় মনোহরগঞ্জ, দেবিদ্বার, মুরাদনগর, ব্রাক্ষ্মণপাড়া কুমিল্লা সদর দক্ষিণ ০৫টি উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় আশ্রয়ণ প্রকল্পের কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

খ)

সামাজিক নিরাপত্তা সেবা

৬.

বয়স্ক ভাতা কার্যক্রম

  • সরকার কর্তৃক সামাজিক নিরাপত্তার জন্য নির্ধারিত হারে বয়স্ক ভাতা প্রদান। এ জন্য ২০১০-১১ অর্থ বছরে নির্বাচিত বয়স্ক ব্যক্তিদের জনপ্রতি মাসিক ৩০০টাকা হারে ভাতা প্রদান।

 

  • কুমিল্লা জেলার পৌরসভা ও উপজেলার ৬৫ বছর বা তদূর্ধ বয়সী হতদরিদ্র মহিলা বা পুরুষ, যার বার্ষিক গড় আয় অনূর্ধ ৩,০০০ (তিন হাজার ) টাকা;
  • শারীরিক ভাবে অক্ষম ও কর্মক্ষমতাহীন প্রবীণ  পুরুষ ও মহিলাকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়া হয়;
  • তালাকপ্রাপ্ত, স্বামী পরিত্যক্ত, বিপত্নীক, নিঃসন্তান, পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন প্রবীণ  পুরুষ ও নারীদের অগ্রাধিকার দেয়া হয়;
  • যে সকল প্রবীণ ব্যক্তির আয়কৃত অর্থের সম্পূর্ণ অর্থ খাদ্য বাবদ ব্যয় হয় এবং স্বাস্থ্য, চিকিৎসা, বাসস্থান ও অনান্য খাতে ব্যয় করার জন্য কোন অর্থ অবশিষ্ট থাকে না;
  • ভূমিহীন বয়স্ক ব্যক্তি।

 

  • বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে সর্বোচ্চ ৩ মাসের মধ্যে নতুন ভাতাভোগী নির্বাচনসহ ভাতা বিতরণের ব্যবস্থা গ্রহণ;
  • নির্বাচিত ভাতাভোগীকে বরাদ্দপ্রাপ্তি সাপেক্ষে প্রতিমাসে প্রদান করা। তবে কেউ এককালীন উত্তোলন করতে চাইলে তিনি নির্ধারিত সময়ের শেষে  উত্তোলন করবেন;
  • ভাতাগ্রহীতার নমিনীকে ভাতাভোগীর মৃত্যুর পূর্বে প্রাপ্ত বকেয়া টাকা এবং মৃত্যুর পর তিন মাস পর্যন্ত ভাতার টাকা উত্তোলন করা যাবে।
  • শহর সমাজসেবা কার্যালয়, উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় (উপজেলা ও ‘গ’ শ্রেণীর পৌরসভার ক্ষেত্রে)
  • জেলা সমাজসেবা কার্যালয় (‘ক’ ও ‘খ’ শ্রেণীর পৌরসভার ক্ষেত্রে)

 

৭.

অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতা কার্যক্রম

  • সরকার কর্তৃক সামাজিক নিরাপত্তার জন্য নির্ধারিত হারে অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতা প্রদান। এ জন্য ২০১০-১১ অর্থ বছরে নির্বাচিত প্রতিবন্ধীব্যক্তিদের জনপ্রতি মাসিক ৩০০ টাকা হারে ভাতা প্রদান।

 

  • ৬ বছরের ঊর্ধে সকল ধরণের প্রতিবন্ধী ব্যক্তি যিনি বয়স্কভাতা কিংবা সরকার কর্তৃক অন্য কোন ভাতা পান না; যিনি চাকুরীজীবী  কিংবা পেনশনভোগী নন;
  • প্রতিবন্ধী ব্যক্তি যাদের বার্ষিক মাথাপিছু পারিবারিক আয় ২৪,০০০ (চবিবশ হাজার)  টাকার কম
  • বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে সর্বোচ্চ ৩ মাসের মধ্যে নতুন ভাতাভোগী নির্বাচনসহ ভাতা বিতরণের ব্যবস্থা গ্রহণ;
  • নির্বাচিত ভাতাভোগীকে বরাদ্দপ্রাপ্তি সাপেক্ষে প্রতিমাসে প্রদান। তবে কেউ এককালীন উত্তোলন করতে চাইলে তিনি নির্ধারিত সময়ের শেষে  উত্তোলন করবেন;
  • উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় (উপজেলা ও  উপজেলা পর্যায়ের পৌরসভার ক্ষেত্রে)
  • শহর সমাজসেবা কার্যালয় জেলাপর্যায়ের ‘ক’ ও ‘খ’ শ্রেণীর পৌরসভার ক্ষেত্রে)

৮.

প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা উপবৃত্তি

প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের ৪টি সত্মরে বিভক্ত করে নিম্নরূপ হারে উপবৃত্তির প্রদান:-

  • প্রাথমিক স্তর (১ম-৫ম শ্রেণী):  জনপ্রতি মাসিক ৩০০ টাকা;
  • মাধ্যমিক স্তর (৬ষ্ঠ--১০ম শ্রেণী):  জনপ্রতি মাসিক ৪৫০ টাকা;
  • উচ্চ মাধ্যমিক স্তর (একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণী):  জনপ্রতি মাসিক ৬০০ টাকা;
  • উচ্চতর স্তর (স্নাতক ও স্নাতকোত্তর):  জনপ্রতি মাসিক ১০০০ টাকা;
  • সরকার কর্তৃক অনুমোদিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত ৫ বছর বয়সের ঊর্ধে প্রতিবন্ধী ছাত্র-ছাত্রী, যাদের বার্ষিক মাথাপিছু পারিবারিক আয় ৩৬,০০০ (ছত্রিশ হাজার)  টাকার নিচে ।

 

  • বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে সর্বোচ্চ ৩ মাসের মধ্যে নতুন উপবৃত্তি গ্রহণকারী  নির্বাচনসহ উপবৃত্তি বিতরণ এবং  নিয়মিতভাবে শিক্ষাকালীন সময়ে;
  • উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় (উপজেলা ও পৌরসভার ক্ষেত্রে)
  • শহর সমাজসেবা কার্যালয়, জেলাপর্যায়ে অবস্থিত ‘ক’ ও ‘খ’ শ্রেণীর পৌরসভার ক্ষেত্রে)

৯.

মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা

  • সরকার কর্তৃক নির্ধারিত হারে ভাতা প্রদান। ২০১০-১১ অর্থ বছরে প্রত্যেক অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাকে মাসিক জনপ্রতি  ২০০০ টাকা হারে ভাতা প্রদান।
  • মুক্তিযোদ্ধা ও  মুক্তিযোদ্ধার বিধবা স্ত্রী যার বার্ষিক আয় ২৪,০০০ টাকার ঊর্ধে নয়;
  • মুক্তিযোদ্ধা বলতে জাতীয়ভাবে প্রকাশিত ৪টি তালিকার কমপক্ষে দুটি তালিকায় অর্ন্তভুক্ত, সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ এবং বাংলাদেশ রাইফেল্সহতে প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় যাদের নাম অন্তর্ভুক্ত আছে বা মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্তৃক প্রকাশিত গেজেট বা মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের কর্তৃক মুক্তিযোদ্ধা সনদপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা।
  • এক্ষেত্রে কর্মক্ষম নন বা আংশিক কর্মক্ষম/ ভূমিহীন/কর্মহীন/সহায় সম্বলহীন মুক্তিযোদ্ধাগণ অগ্রাধিকার পাবেন;
  • বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে সর্বোচ্চ ৬ মাসের মধ্যে নতুন ভাতাভোগী নির্বাচনসহভাতা বিতরণের ব্যবস্থা গ্রহণ
  • মুক্তিযোদ্ধা সম্মানীভাতা প্রতিমাসে প্রদান করা হয়, তবে কেউ ইচ্ছা করলে একাধিক মাসের বকেয়া ভাতা একত্রে উত্তোলন করতে পারবেন ।

 

  • উপপরিচালক, জেলা সমাজসেবা কার্যালয়
  • উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা, উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় (উপজেলা ও উপজেলা পর্যায়ের ‘ক’ ‘খ’ ও ‘গ’ শ্রেণীর পৌরসভার ক্ষেত্রে)

১০.

বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্ত দুস্থ মহিলাদের জন্য ভাতা কার্যক্রম

  • সরকার কর্তৃক সামাজিক নিরাপত্তার জন্য নির্ধারিত হারে বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্ত দুস্থ মহিলাদের জন্য ভাতা প্রদান। এ জন্য ২০১০-১১ অর্থ বছরে নির্বাচিত বয়স্ক ব্যক্তিদের জনপ্রতি মাসিক ৩০০টাকা হারে ভাতা প্রদান।

 

  • কুমিল্লা জেলার পৌরসভা ও উপজেলার বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্ত দুস্থ মহিলাদের জন্য ভাতা প্রদান কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। শারীরিক ভাবে অক্ষম ও কর্মক্ষমতাহীন মহিলাকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়া হয়;
  • তালাকপ্রাপ্ত, স্বামী পরিত্যক্ত, বিপত্নীক, নিঃসমত্মান, পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন নারীদের অগ্রাধিকার দেয়া হয়;
  • যে সকল মহিলার আয়কৃত অর্থের সম্পূর্ণ অর্থ খাদ্য বাবদ ব্যয় হয় এবং স্বাস্থ্য, চিকিৎসা, বাসস্থান ও অনান্য খাতে ব্যয় করার জন্য কোন অর্থ অবশিষ্ট থাকে না;
  • ভূমিহীন দুস্থ মহিলা।

 

  • বরাদ্দ প্রাপ্তি সাপেক্ষে সর্বোচ্চ ৩ মাসের মধ্যে নতুন ভাতাভোগী নির্বাচনসহ ভাতা বিতরণের ব্যবস্থা গ্রহণ;
  • নির্বাচিত ভাতাভোগীকে বরাদ্দপ্রাপ্তি সাপেক্ষে প্রতিমাসে প্রদান করা। তবে কেউ এককালীন উত্তোলন করতে চাইলে তিনি নির্ধারিত সময়ের শেষে  উত্তোলন করবেন;
  • ভাতাগ্রহীতার নমিনীকে ভাতাভোগীর মৃত্যুর পূর্বে প্রাপ্ত বকেয়া টাকা এবং মৃত্যুর পর তিন মাস পর্যন্ত ভাতার টাকা উত্তোলন করা যাবে।
  • শহর সমাজসেবা কার্যালয়, উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় (উপজেলা ও ‘গ’ শ্রেণীর পৌরসভার ক্ষেত্রে)
  • জেলা সমাজসেবা কার্যালয় (‘ক’ ও ‘খ’ শ্রেণীর পৌরসভার ক্ষেত্রে)

 

গ)

এতিম, অবহেলিত, দুস্থ ও বিপন্ন  শিশুদের অধিকার সুরক্ষা, প্রতিপালন, কল্যাণ, উন্নয়ন ও পুনর্বাসন

১১.

সরকারি শিশু পরিবারে এতিম শিশু প্রতিপালন ও পুনর্বাসন

  • অনূর্ধ ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত এতিম শিশুদের প্রতিপালন।
  • পারিবারিক পরিবেশে স্নেহ-ভালবাসা ও আদর-যত্নের সাথে এতিম শিশুদের লালন পালন।
  • শিক্ষা ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ প্রদান।
  • নিবাসীদের শারীরিক, বুদ্ধিবৃত্তিক ও মানবিক উৎকর্ষ সাধন।
  • পুনর্বাসন ও স্বনির্ভরতা অর্জনের লক্ষ্যে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা।
  • ৬ থেকে ৯ বছর বয়সী এতিম অর্থাৎ পিতৃহীন বা পিতৃ-মাতৃহীন দরিদ্র শিশুকে কে ভর্তি করার পর ১৮ বছর বয়স পর্যমত্ম সেবা প্রদান করা হয়।।

 

  • শিশু পরিবারে ভর্তির জন্য আবেদনপত্র  প্রাপ্তির পর আসন খালি থাকা সাপেক্ষে ১ মাসের মধ্যে প্রক্রিয়া চূড়ান্তকরণ।
  • শিশুর বয়স ১৮ বছর হওয়া পর্যন্ত বিভিন্ন ধরণের সেবা প্রদান।

 

  • কুমিল্লা্ জেলার দেবিদ্বার উপজেলায় অবস্থিত ০১টি বালক, সদর উপজেলায় সংরাইশে অবস্থিত ০১টি বালিকা সর্বমোট মোট ০২টি সরকারি শিশু পরিবার। 

 

ঘ)

প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের  অধিকার সুরক্ষা, প্রতিপালন, কল্যাণ, উন্নয়ন ও পুনর্বাসন

১২.

প্রতিবন্ধিতা সনদ প্রদান

প্রতিবন্ধিতা সনদ প্রদান

প্রতিবন্ধী ব্যক্তি

প্রয়োজনীয়  তথ্য সহ আবেদনের ১ দিনের মধ্যে

  • কুমিল্লা জেলা সমাজসেবা কার্যালয়

১৩.

সমন্বিত দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষা কার্যক্রম

  • দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের সমন্বিতভাবে সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের সাথে আনুষ্ঠানিক শিক্ষা প্রদান
  • দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ছাত্রদের আবাসিক/অনাবাসিক থাকার ব্যবস্থা ও ভরণ-পোষণ
  • ব্রেইল পদ্ধতির মাধ্যমে শিক্ষা দানের ব্যবস্থাকরণ
  • বিনা মূল্যে ব্রেইল বই ও অন্যান্য সহায়ক শিক্ষা উপকরণ সরবরাহ
  • দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ছাত্রদের জন্য থাকা-খাওয়ার হোস্টেল সুবিধা প্রদান
  • দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ছাত্রদের পুনর্বাসন।

দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ছাত্র।

 

  • আবেদন প্রাপ্তির ১ মাসের মধ্যে ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্নকরণ
  • ভর্তির পর হতে  এস এস সি পরীক্ষার সময় পর্যন্ত কার্যক্রমের সকল সুযোগ-সুবিধা প্রদান

 

  • সমন্বিত অন্ধ শিক্ষা কার্যক্রম, ভিক্টোরিয়া কলেজ ক্যাম্পাস, কুমিল্লা।

 

১৪.

প্রবেশন ও আফটার কেয়ার কর্মসূচি বাস্তবায়ন

  • মাননীয় আদালতের নির্দেশে প্রথম ও লঘু অপরাধে দন্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের শাস্তি প্রদান স্থগিত রেখে প্রবেশন অফিসারের তত্ত্বাবধানে পারিবারিক/সামাজিক পরিবেশে রেখে সংশোধন ও আত্মশুদ্ধির ব্যবস্থা করা।
  • কারবন্দী ব্যক্তিদের শিক্ষা ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ প্রদান।
  • সাজাপ্রাপ্ত শিশুদের কারাগারে না রেখে কিশোর/ কিশোরী উন্নয়ন কেন্দ্রে  প্রবেশন অফিসার/ সোস্যাল কেইস ওয়ার্কারের তত্ত্বাবধানে কাউন্সেলিং এর মাধ্যমে শিশুর মানসিকতার উন্নয়ন এবং সংশোধন।
  • টাস্কফোর্স কমিটির সহায়তায় কারাগারে বন্দি শিশু কিশোরদের মুক্তি/ কিশোর/ কিশোরী উন্নয়ন কেন্দ্রে স্থানান্তর
  • মুক্তিপ্রাপ্ত কয়েদীদের দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ
  • কারাগারে আটক সাজাপ্রাপ্ত নারীদের শর্ত সাপেক্ষে মুক্তি।
  • মুক্তি প্রাপ্ত কয়েদী/ প্রবেশনারদের সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে পুনর্বাসন।
  • সংশিষ্ট আদালত কর্তৃক  সাজাপ্রাপ্ত প্রবেশনার/ব্যক্তি।
  • আইনের সংস্পর্শে আসা শিশু/কিশোর।
  • মৃত্যুদন্ড, যাবজ্জীবন কারাদন্ড এবং রাষ্ট্রদ্রোহিতা, বিস্ফোরক দ্রব্য আইন, অস্ত্র আইন ও মাদকদ্রব্য সংশ্লিষ্ট আইনে দন্ডপ্রাপ্ত নারী ব্যতীত ১ বছরের অধিক যে কোন মেয়াদে কারাদন্ডপ্রাপ্ত কোন নারী যিনি রেয়াতসহ শতকরা ৫০ ভাগ কারাদন্ড ভোগ করেছেন।

 

  • বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক নির্ধারিত সময়সীমা/ প্রদত্ত আদেশ
  • পুনর্বাসনের বিষয়ে অপরাধী সংশোধন ও পুনর্বাসন সমিতি/ উপজেলা/ শহর সমাজসেবা কার্যক্রম প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির অনুমোদন প্রাপ্তির পর ২০ কর্মদিবসের মধ্যে।

 

  • প্রবেশন অফিস (জেলা শহরে অবস্থিত জেলা সমাজসেবা কার্যালয়)
  • সকল উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়
  • শহর সমাজসেবা কার্যালয়

 

ঙ)

অসহায়, দুস্থ রোগীদের অধিকার সুরক্ষা, কল্যাণ ও পুনর্বাসন

১৫.

হাসপাতাল সমাজসেবা কার্যক্রম

  • হাসপাতালে ভর্তি ও চিকিৎসা প্রাপ্তিতে সহায়তা ও দিক নির্দেশনা প্রদান;
  • দরিদ্র ও অসহায় রোগীদের ঔষধ, রক্ত, পথ্য, বস্ত্র, চশমা, ক্রাচ, কৃত্রিম অঙ্গ প্রদানসহ বিভিন্ন চিকিৎসা সামগ্রী সরবরাহ;
  • দরিদ্র ও অসহায় রোগীদের প্রয়োজনীয় পরীক্ষা ও চিকিৎসা ব্যয়ে সহায়তা প্রদান;
  • দরিদ্র ও অসহায় রোগীদের প্রয়োজনে পুষ্টিকর খাবার সরবরাহ;
  • অবাঞ্ছিত ও পরিত্যক্ত  শিশুদের পুনর্বাসন;
  • রোগের কারণে পরিবারে অনাকাংখিত হয়ে দুর্বিসহ জীবনযাপনকারীদের স্বাভাবিক জীবনে প্রত্যাবর্তনে সহায়তা প্রদান করা;
  • দরিদ্র ও অসহায় বৃদ্ধ/ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের চিকিৎসার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার প্রদান এবং  সমাজসেবা অধিদফতর  পরিচালিত প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযোগ করে দেয়া;
  • হাসপাতালে অবস্থানরত রোগীদের চিত্ত বিনোদনের ব্যবস্থা করা;
  • চিকিৎসার প্রয়োজনে রোগীকে অন্য হাসপাতাল/চিকিৎসা কেন্দ্র স্থানান্তরে সহায়তা;
  • রোগীদের স্বাস্থ্যসচেতনতা/ প্রাথমিক চিকিৎসা বিষয়ে  পরামর্শ প্রদান;
  • গুরুতর অসুস্থতা, অপারেশন ইত্যাদি ক্ষেত্রে মানসিক বিপর্যস্ত রোগী বা রোগীর অভিভাবককে সাহস ও শান্তনা যোগানো;
  • নামপরিচয়হীন দরিদ্র মৃত ব্যক্তির সৎকারের ব্যবস্থা করা;
  • রোগ মুক্তির পর দরিদ্র ও অসহায় রোগীদের প্রয়োজনে আর্থিক সহায়তা/যাতায়াত ভাড়া প্রদানের মাধ্যমে পরিবারে পুনঃএকত্রিকরণে সহায়তা করা।

সমস্যাগ্রস্থ অসহায় ও দরিদ্র রোগী

 

অসহায় ও দরিদ্র রোগী চিহ্নিত হওয়া বা রোগী আবেদন করার পর তাৎক্ষণিক ভাবে সংশ্লি­ষ্ট ডাক্তারের সুপারিশক্রমে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা প্রদান।

 

  • জেলা সদরে অবস্থিত সরকারি হাসপাতাল, কুমিল্লা।
  • মেডিক্যাল কলেজ  হাসপাতাল, কুমিল্ল।
  • উপজেলায় অবস্থিত সরকারী হাসপাতাল সমূহ।
  •  

১৬.

শহর সমাজসেবা কার্যালয়ে আর্থ-সামাজিক ও দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ

  • কম্পিউটার;
  • দর্জি বিজ্ঞান;
  • এম্ব্রয়ডারী;
  • বাটিক ও ব্লক

ইত্যাদি ট্রেডে প্রশিক্ষণ প্রদান।

শহর এলাকার শিক্ষিত, অর্ধ শিক্ষিত বেকার যুবক ও যুব নারী

আসন খালি সাপেক্ষে আবেদনের সাথে সাথে এবং ভর্তির পর কোর্স ভেদে ৩-৬ মাস পর্যন্ত।

জেলা শহরে ০১টি শহর সমাজসেবা কার্যালয়

চ)

স্বেচ্ছাসেবী সমাজকল্যাণ সংস্থাসমূহকে নিবন্ধন ও সহায়তা

১৭.

স্বেচ্ছাসেবী সমাজকল্যাণ সংস্থাসমূহ নিবন্ধন ও তত্ত্বাবধান

  • স্বেচছাসেবী সমাজকল্যাণমূলক সংগঠনের নামকরণের ছাড়পত্র প্রদান;
  • ১৯৬১ সালের স্বেচছাসেবী সমাজকল্যাণ সংস্থাসমূহ (নিবন্ধন ও নিয়ন্ত্রন) অধ্যাদেশের ২(চ) ধারায় বর্ণিত সেবামূলক কার্যক্রমে আগ্রহী সংস্থা/প্রতিষ্ঠান/সংগঠন/বেসরকারি এতিমখানা/ক্লাব নিবন্ধন;
  • নিবন্ধন প্রাপ্ত সংগঠনের গঠনতন্ত্র বা সংশোধিত গঠনতন্ত্র অনুমোদন, সাধারণ ও কার্যকরী পরিষদ অনুমোদন, মেয়াদান্তে নব নির্বাচিত কার্যকরী পরিষদ অনুমোদন;
  • নিবন্ধন প্রাপ্ত সংগঠনের কার্যএলাকা একাধিক জেলায় সম্প্রসারণের অনুমোদন;
  • নিবন্ধন প্রাপ্ত সংগঠনের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ নিষ্পত্তির ব্যবস্থা গ্রহণ;
  • নিবন্ধন প্রাপ্ত সংগঠসমূহের কার্যক্রম তদারকি।

 

স্বেচ্ছাসেবী সমাজকল্যাণমূলক কার্যক্রমে আগ্রহী  সংগঠন, প্রতিষ্ঠান, ক্লাব, সংস্থা, সমিতি ইত্যাদি।

  • নিবন্ধন- প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র প্রাপ্তির পর ২০ কর্ম দিবস;
  • নামের ছাড়পত্র- প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র প্রাপ্তির পর ৭ কর্ম দিবস;
  • কার্যকরী কমিটি অনুমোদন- প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র প্রাপ্তির পর ১০ কর্ম দিবস;
  • কার্য এলাকা সম্প্রসারণ- প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ আবেদনপত্র প্রাপ্তির পর ৩০ কর্ম দিবস;
  • অভিযোগ নিষ্পত্তি অভিযোগ প্রাপ্তির পর ৩০ কর্ম দিবস;
  • নামের ছাড়পত্র, নিবন্ধন, কার্যকরী কমিটি অনুমোদন ইত্যাদি সেবার জন্য প্রাথমিকভাবে সংশ্লিষ্ট সমাজসেবা কর্মকর্তার মাধ্যমে জেলা সমাজসেবা কার্যালয়;
  • একাধিক জেলায় কার্যএলাকা সম্প্রসারণের জন্য সমাজসেবা অধিদফতরের সদর কার্যালয়;
  • অভিযোগ নিষ্পত্তির জন্য সংশ্লিষ্ট জেলা সমাজসেবা কার্যালয় এবং সদর কার্যালয়।

১৮.

বেসরকারি এতিমখানায় ক্যাপিটেশন গ্রান্ট প্রদান

  • ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত এতিম শিশুদের প্রতিপালন
  • স্নেহ-ভালবাসা ও আদর-যত্নের সাথে লালন পালন
  • আনুষ্ঠানিক শিক্ষা ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ প্রদান
  • শারীরিক, বুদ্ধিবৃত্তিক ও মানবিক উৎকর্ষতা সাধন
  • শিশুর পরিপূর্ণ বিকাশে সহায়তা
  • পুনর্বাসন ও স্বনির্ভরতা অর্জনের লক্ষ্যে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা।

বেসরকারি এতিমখানার ৫-৯ বছর বয়সী এতিম অর্থাৎ পিতৃহীন বা পিতৃমতিৃহীন দরিদ্র শিশুর শতকরা ৫০ ভাগ শিশু।

 

 

 

 

 

বেসরকারি এতিমখানা কর্তৃক ক্যাপিটেশন গ্রান্টের আবেদন প্রাপ্তির ৭ মাস পর।

 

সংশ্লিষ্ট উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় এবং শহর সমাজসেবা কার্যালয় এর মাধ্যমে  কুমিল্লা জেলাব্যাপী ২২৭ বেসরকারি এতিমখানা।

১৯.

সমাজকল্যাণ পরিষদের মাধ্যমে নিবন্ধনপ্রাপ্ত সংস্থাসমূহে অনুদান প্রদানে সহায়তা

  • সমাজসেবা অধিদফতর হতে ঘোষিত জাতীয় পর্যায়ের প্রতিষ্ঠানসমূহে অনুদান বার্ষিক ৫০ হাজার হতে সর্বোচ্চ ২ লক্ষ টাকা অনুদান;
  • শহর সমাজ উন্নয়ন প্রকল্প সমন্বয় পরিষদে সর্বোচ্চ ১ লক্ষ টাকা অনুদান
  • রোগী কল্যাণ সমিতি সমূহেরর জন্য ৫০ হাজার হতে ২ লক্ষ টাকা অনুদান
  • অপরাধী সংশোধন ও পুনর্বাসন সমিতিসমূহের জন্য ৫০ হাজার হতে ১ লক্ষ টাকা অনুদান
  • নিবন্ধন প্রাপ্ত স্বেচছাসেবী সংগঠনসমূহের আয়বর্ধক কর্মসূচির জন্য অনুদান
  • নিবন্ধন প্রাপ্ত স্বেচছাসেবী সংগঠনসমূহের জন্য ৫ হাজার হতে ২০ হাজার টাকা সাধারণ অনুদান এবং আয়বর্ধক কর্মসূচির জন্য সর্বোচ্চ ১ লক্ষ টাকা অনুদান;
  • প্রতিষ্ঠান/সংগঠন/সংস্থা/দুস্থ ব্যক্তিদের বিশেষ সর্বোচ্চ ২৫ হাজার টাকা অনুদান;
  • আকস্মিক দূর্ঘটনা বা প্রাকৃতিক দুর্যোগের জন্য সর্বোচ্চ জন প্রতি ১ হাজার টাকা।

সমাজকল্যাণ পরিষদ থেকে নিম্নলিখিত প্রতিষ্ঠান/ সংগঠনকে অনুদান প্রদান করা হয়:-

  • জাতীয় পর্যায়ের স্বেচছাসেবী সংগঠন
  • শহর সমাজ উন্নয়ন প্রকল্প সমন্বয় পরিষদ
  • রোগী কল্যাণ সমিতি
  • অপরাধী সংশোধন ও পুনর্বাসন সমিতি
  • নিবন্ধন প্রাপ্ত সাধারণ স্বেচছাসেবী সংগঠন
  • বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান
  • দরিদ্র/ক্ষতিগ্রস্থ ব্যক্তি

 

  • সমাজকল্যাণ পরিষদে প্রতি বছর আগষ্ট মাসে জাতীয় দৈনিক পত্রিকার বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী আবেদন করতে হয়।
  • ডিসেম্বরের মধ্যে জেলা ও উপজেলা সমাজকল্যাণ পরিষদ আবেদন বাছাই করে জাতীয় সমাজকল্যাণ পরিষদে সুপারিশ প্রেরণ করে।
  • জাতীয় সমাজকল্যাণ পরিষদ এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়।

 

 

  • সমাজকল্যাণ পরিষদ সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীন একটি সংস্থা। মাঠ পর্যায়ে পরিষদের কার্যক্রম সমাজসেবা অধিদফতরের
  • উপজেলা পর্যায়ে ৪৮১টি উপজেলা সমাজসেবা ও শহর এলাকায় ৮০টি শহর সমাজসেবা কার্যালয় এবং  জেলা সমাজসেবা কার্যালয়, কুমিল্লা এর মাধ্যমে বাস্তবায়িত হয়।

 

২০.

স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা/প্রতিষ্ঠান সমূহের সাথে উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা

  • অসহায় দূঃস্থ রোগীদের অধিকার সুরক্ষা, কল্যাণ ও পুনর্বাসনে সহায়তা প্রদান;
  • যে সমসত্ম প্রতিষ্ঠান সমাজের অনগ্রসর পশ্চাৎপদ অবহেলিত, এতিম, প্রতিবন্ধী, দুস্থ, সমস্যাগ্রস্থ ব্যক্তিদের সেবা দিয়ে থাকে তাদের প্রকল্প প্রণয়নে সহায়তা প্রদান;
  • অনুরূপ প্রকল্প অনুমোদনের প্রত্যাশী সংস্থাকে যথাযথ সহায়তা প্রদান;
  • অনুমোদিত প্রকল্পের ক্ষেত্রে প্রত্যাশী সংস্থার অনুকূলে অর্থ ছাড়করণে  সহায়তা প্রদান;
  • স্বাস্থ্যসেবা প্রকল্পের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট হাসপাতালের মাধ্যমে ৩০% রোগীকে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান;
  • বিনামূল্যে দুস্থ, এতিম, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের  প্রত্যাশী সংস্থার মাধ্যমে প্রতিপালন ও পুনর্বাসন।
  • বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান যারা সমাজসেবা মূলক কার্যক্রমেরসাথে সম্পৃক্ত;
  • স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান বিশেষ করে ডায়বেটিক, হার্ট, চক্ষু, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠান;
  • অপরাধপ্রবণ কিশোর- কিশোরী এবং এতিম শিশুদের লালন পালনকারী স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান;
  • বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান এর মাধ্যমে দরিদ্র, সমস্যাগ্রস্থ, প্রতিবন্ধী, ব্যক্তি/শিশু এবং রোগী।

 

  • প্রতিষ্ঠান হিসেবে সমাজসেবা অধিদফতরের সাথে যৌথ উদ্যোগে সেবা প্রদানমূলক প্রতিষ্ঠান তৈরির জন্য বিধি মোতাবেক ডিপিপি দাখিলের পর ১ বছর।
  • প্রকল্পের অবকাঠামো তৈরির পর দুস্থ জনগণের কল্যাণে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট সেবা প্রাপ্তি তাৎক্ষণিকভাবে।

 

§  বাংলাদেশ জাতীয় অন্ধ কল্যাণ সমিতি হাসপাতাল, কুমিল্লা;

 

ছবি নাম মোবাইল
এবিএম মোস্তফা কামাল 0

ছবি নাম মোবাইল
এবিএম মোস্তফা কামাল 0

ছবি নাম মোবাইল

 


‘‘ক’’ আর্থ সামাজিক কার্যক্রম

ক্রঃনং

কার্যক্রমের নাম

প্রাপ্ত মোট তহবিল

 মোট বিনিয়োগ

উপকার ভোগীর সংখ্যা/স্কীম গ্রহীতার সংখ্যা

০১

পল্লী সমাজসেবা কার্যক্রম

৩,৬৫,১৩,৩১২/-

৩,৬৩,১০,২৫৮/-

২১১৩৭ টি

০২     

আর এস এস ৬ষ্ঠ পর্ব

১, ৩২,৮৩,৭৫০/-

১,৩২,৮৩,৭৫০/-

২৭৭৫টি

০৩

পল্লী মাতৃকেন্দ্র

৬৭,৩৭,৮৩৬/-

৬৭,৩৪,০৪১/-

৬৬৪১ টি

০৪

এসিডদগ্ধব ও

শারীরিক প্রতিবন্ধিদের

পুনর্বাসন কার্যক্রম

২,২৭,৬৬,৬৯৮/-

২,২৫,৯২,৭২২/-

২৩০১ টি

০৫

শহর সমাজসেবা কার্যক্রম

৫,১৭,৬০৫/-

৫,১৭,৬০৫/-

১৩৫৬ টি

০৬

আশ্রয়ন প্রকল্প

১১,৬০,০০০/-

১১,৫০,০০০/-

১৮৮ টি

 

                  মোট

৮,০৯,৭৯,৩০১/-

৮,০৫,৮৮,৩৭৬/-

৩৪৩৯৮টি

 

‘‘খ’’ ভাতা সংক্রান্ত কার্যক্রমের তথ্যাবলী।

২০১০-১১ অর্থ বছর

ক্রঃনং

কার্যক্রমের নাম

ভাতা ভোগীর সংখ্যা

 জন প্রতি মাসিক ভাতা বৃত্তির পরিমান  (টাকা)

 

০১

বয়স্ক ভাতা

৯৪৬৯৯ জন

৩০০/-

০২     

মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা

৭২০০ জন

২০০০/-

০৩

অসচ্ছল প্রতিবন্ধি ভাতা

১০৭৫১ জন

৩০০/-

০৪

প্রতিবন্ধি শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষা উপবৃত্তি

৫৮৭ জন

প্রাথমিক-৩০০/-

মাধ্যমিক-    ৪৫০/-

উচ্চমাধ্যমিক-৬০০/-

উচ্চতর-১০০০/-

০৫

বিধবা ও স্বামী পরিত্যক্তা দুঃস্থ মহিলাদের ভাতা

২৫৮৬৩ জন

                                      ৩০০/-

 

                 মোট-

১৩৯১০০ জন

 

 

জেলা সমাজসেবা কার্যালয়
জলেশ্বরীতলা(জলতরঙ্গ বিল্ডিং),বগুড়া

ফোন: ০৫১-৬৬৬২৮ মোবাইল: